logo
   প্রচ্ছদ  -   অর্থ-বাণিজ্য

ভবিষ্যতে ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের মূলধন ২০ হাজার কোটি টাকা হবে
Posted on Aug 11, 2017 05:57:09 PM.

ভবিষ্যতে ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের মূলধন ২০ হাজার কোটি টাকা হবে

একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের মূলধন বর্তমানে ৮ হাজার কোটি টাকা হলেও ভবিষ্যতে এ মূলধনের পরিমান ২০ হাজার কোটি টাকা হবে। বর্তমানে ৪০ হাজার সমিতি থাকলেও আগামী বছর এর সংখ্যা ১ লক্ষ্যে পৌঁছাবে।


স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন আজ সচিবালয়স্থ পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সম্মেলন কক্ষে জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউট (এনআইএলজি)-র পরিচালনা বোর্ডের ৪৭ তম সভায় সভাপতিত্বকালে এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্প ভেবে-চিন্তেই নিয়েছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এ প্রকল্প বাংলাদেশের দারিদ্র্য দূর না হওয়া পর্যন্ত চলবে। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্প থাকবে।  

মন্ত্রী বলেন , সরকারের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে দেশকে দারিদ্র্যের অভিশাপ হতে মুক্ত করা। এ লক্ষ্যে জনগণের সঞ্চয় বাড়ানোর বিষয়ে সরকার বদ্ধপরিকর উল্লেখ করে তিনি বলেন, জনগণকে ঋণগ্রস্ত না রেখে তারা যাতে সঞ্চয় বাড়াতে পারে সে লক্ষ্যে ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন – স্থানীয় সরকার বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব ইকরামুল হক ও এনআইএলজি-এর মহাপরিচালক তপন কুমার কর্মকার সহ কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

মন্ত্রী এনআইএলজি, বার্ড, আরডিএ-কে এই প্রকল্প নিয়ে গবেষণা এবং এর মাধ্যমে এ প্রকল্পকে আরও জনবান্ধব করার উপায় খুঁজে বের করতে বলেন। এছাড়াও এনআইএলজি-র কার্যক্রম আরও গতিশীল করারও নির্দেশনা দেন। তিনি বলেন, স্থানীয় সরকারের প্রায় ৬০ হাজার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি রয়েছে।

যথাযথভাবে প্রশিক্ষিত করলে এ বিশাল সংখ্যক প্রতিনিধি প্রতিটি অঞ্চলে উন্নয়ন কার্যক্রমে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিতে পারবে। মন্ত্রী এসময় জুন ২০১৭ পর্যন্ত মোট ৩৪৩ টি প্রশিক্ষণ কোর্সের মাধ্যমে ১৩৯৫ জনকে প্রশিক্ষণের প্রশংসা করে ভবিষ্যতে এর সংখ্যা কয়েক গুণে উন্নীত করার নির্দেশনা দেন।

মন্ত্রী বলেন, এই প্রতিষ্ঠানটিকে আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। নবনির্বাচিত জেলা পরিষদ সদস্যদের গুণগত প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশ দেন।  

তিনি বলেন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহকে প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত দারিদ্র্য দূরীকরণ প্রকল্পসমূহ বাস্তবায়নে নেতৃত্ব দিতে হবে। আর এনআইএলজি-কে এ নেতৃত্ব তৈরি করতে নির্বাচিত প্রতিনিধি, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে ও প্রায়োগিক গবেষণা বাড়াতে হবে।




  এই বিভাগ থেকে আরও সংবাদ

   চট্টগ্রামের চন্দনাইশে আখের বাম্পার ফলন
   ছয়টি ক্রেন কিনতে চীনা কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি
   ঋণে সুদহার কমাল জনতা ও অগ্রণী
   দেশেই উৎপাদিত হচ্ছে ড্রাগন ফল
   ২০২৪ সালের মধ্যেই দারিদ্র্য দূরীকরণে বাংলাদেশ সাফল্য অর্জন করবে
   ব্যাংকমুখী হচ্ছেন বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তারা
   এবছরও রেমিটেন্স কমার আশঙ্কা বিশ্বব্যাংকের
   আজ জাতীয় উৎপাদনশীলতা দিবস
   আজ থেকে বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ শুরু
   চা রফতানিতে রেকর্ডতম আয়
   নিরাপত্তা সঞ্চিতিতে বিশেষ ছাড় কৃষিঋণ বাড়াতে
   বাংলাদেশের ওষুধ ভূটানে যাচ্ছে
   বাংলাদেশ চাইলে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহায়তা দিতে প্রস্তুত বিশ্বব্যাংক
   চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশের রফতানি আয়ে উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জনের পূর্বাভাস এডিবির
   বিশ্ব ব্যাংকের কাছে ২৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ
   আবারও কমেছে স্বর্ণের দাম
   ড্রোন ব্যবহার করে কৃষি উত্পাদন বাড়ানোর চেষ্টা
   আগামী ৩ মাস প্লাস্টিকের বস্তায় চাল আনা যাবে
   স্বর্ণের দাম কমলো
   চালের দাম কমানোর আশ্বাস দিলেন ব্যবসায়ীরা
   খোলা বাজারে ৩০ টাকা দরে ওএমএসের চাল বিক্রি শুরু
   ৩৫ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার দেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক
   টাঙ্গাইলের সখীপুরে ডিম উৎপাদনে নতুন রেকর্ড
   এডিবি ২০ কোটি মার্কিন ডলার দিবে পৌরসভার উন্নয়নে
   বৃদ্ধি পেল স্বর্ণের দাম
   চাঁদপুরের আড়তগুলোতে লোনা ইলিশ প্রক্রিয়াজাত শুরু
   সরকার দেশে ১শ’টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলবে
   ভেস্তে যাচ্ছে গ্রিন ট্যাক্স আদায়ের উদ্যোগ
   ১০ লাখ নয়, ৩ লাখ টন চাল দিতে রাজী মিয়ানমার
   বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি হার ছাড়ালো পাকিস্তানকে


  পুরনো সংখ্যা