logo
   প্রচ্ছদ  -   সম্পাদকীয়

ঘটনা ঘটেই চলেছে, প্রতিকার কোথায়
Posted on Apr 20, 2015 06:02:32 PM. বিডিজার্নাল প্রতিবেদক





ধর্ম-গোত্র-বর্ণ, ছোট-বড় সবার সর্বজনীন উৎসব বৈশাখী উৎসব। মানুষ নানান আয়োজনে নববর্ষের প্রথম দিনটি উদ্‌যাপন করে। অথচ সেই উৎসবে পরিকল্পিতভাবে, সংঘবদ্ধ হয়ে প্রায় ঘণ্টা খানেক সময় নিয়ে নারীদের ওপর যৌন-হামলা চলেছে। এ ধরনের হামলা বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। যারা নারীর স্বাধীনতা, বাংলাদেশের সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করে না, তারাই এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। মৌলবাদী চিন্তা-চেতনা নিয়েই ঘটনা ঘটানো হয়েছে। তবে তার চেয়েও ভয়াবহ হলো, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় এ ধরনের যৌন-হামলা যখন চলছে, তখন সেখানে সহস্রাধিক মানুষ ছিল। তারা তাকিয়ে তাকিয়ে দেখেছে। তারাও পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গির অধিকারী। এ ধরনের ঘটনা প্রতিহত করা বা প্রতিবাদ করার প্রয়োজনীয়তা আছে বলেই মনে হয়নি তাদের। গুটিকয়েক তরুণ শুধু এগিয়ে এসেছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় নারীর ওপর যৌন হামলা, নিপীড়ন বা নির্যাতনের ঘটনা এবারই প্রথম ঘটেছে, তা নয়। ঘটনা ঘটেই চলেছে। তবে তার প্রতিকার পাওয়া যায়নি। যে গুটিকয়েক তরুণ এবারের ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়েছিল, তাদের কাছে ভরসার জায়গা ছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তবে ভরসার জায়গায় গিয়ে তাদের হতাশ হতে হয়েছে। কেননা তারা সহায়তার হাত বাড়ায়নি। তারাও পুরুষতান্ত্রিক মনোভাব থেকে মনে করেছে কি-ই বা এমন ঘটেছে। ভিড়ের মধ্যে একটু-আধটু এমন ঘটনা ঘটেই থাকে। নারীর প্রতি যে দৃষ্টিভঙ্গি তারই প্রতিফলন ঘটেছে এখানে। তাই যত আইন, বিধি, নীতিই থাকুক না কেন, কোনো লাভ হবে না। তথ্যপ্রযুক্তির যুগে এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত, সেই ছেলেদের ছবি, অঙ্গভঙ্গি দেখা সম্ভব হচ্ছে। যাদের ছেলে এ ধরনের কাজ করছে, সেই অভিভাবকদেরও সচেতন হতে হবে। সন্তানের বিষয়ে কঠোর হতে হবে। অভিভাবকেরা সন্তানকে না ঠেকালে বা উদ্যোগ না নিলে পরিস্থিতি কঠিন হবে।

সরকার নারী নির্যাতন প্রতিরোধে মাল্টিসেক্টরাল প্রকল্প শীর্ষক একটি কার্যক্রম পরিচালনা করছে। মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম এটি। প্রশ্ন জাগে, এ কার্যক্রমের ফলাফল কী? ফলাফল হচ্ছে, নববর্ষের দিন নারীর ওপর যৌন হামলা। নববর্ষের দিন রাষ্ট্রের টাকা খরচ করে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। এই ক্যামেরাগুলো দেখার দায়িত্ব ছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর। তবু ভালো যে এই ফুটেজগুলো ছিল। তা না হলে এ বাহিনীর সদস্যরা ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যেত। সব ঘটনা হজম করে দিত।

যারা ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়েছিল, তাদের বিরুদ্ধেই নানান অভিযোগ তোলার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকেও বিষয়টিকে আমলেই নেওয়া হচ্ছে না। ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, রিকশা থেকে টেনে নামানো হচ্ছে, কয়েকজন মিলে ঘিরে ধরে নারীর ওপর যৌন হামলা চালাচ্ছে। তারপরও তাদের কাছে এ ধরনের আচরণ যৌন হামলার পর্যায়ে পড়ছে না। তারা নারীকে বিবস্ত্র করে ফেলা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে চাইছে। ঘটনার পর হাইকোর্টের রায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে এ বিষয়ে ফোকাস করতে বাধ্য করেছে।

এ ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত, তাদের শাস্তি নিশ্চিত করতে না পারলে তার প্রভাব হবে সুদূরপ্রসারী। যাদের দায়িত্বে অবহেলার জন্য এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে, তাদেরও শাস্তির আওতায় আনতে হবে। যারা ঘটনাটিকে ছোট করে দেখতে চাইছে, তাদেরও জবাবদিহির আওতায় আনতে হবে।


মুছা খালেদ

সম্পাদক, বিডি জার্নাল৩৬৫ডট কম




  এই বিভাগ থেকে আরও সংবাদ

   রমজানে চট্টগ্রামে যানজট নিরসনে ৫৮টি স্পটে বিশেষ ট্রাফিক পুলিশ
   সিএমপির কমিউনিটি পুলিশ সপ্তাহ-২০১৭ এর সমাপনী অনুষ্ঠান, আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণী ও মাদক ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসন।
   সিএমপির ট্রাফিক সপ্তাহ-২০১৭ উপলক্ষে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।
   আবারো সেই কনস্টেবল শের আলী
   আজ হতে কমিউনিটি পুলিশিং সপ্তাহ-২০১৭ শুরু
   পবিত্র শব-ই-বরাত এর রাতে পটকা ও আতশবাজি নিষিদ্ধ: সিএমপি।
   সিএমপির ০২ নারী পুলিশ সদস্যের বাংলাদেশ মহিলা পুলিশ এওয়ার্ড ২০১৭ অর্জন
   “শুভ নববর্ষ ১৪২৪” বাংলা বর্ষবরণ অনুষ্ঠানমালায় নগরবাসীর প্রতি সিএমপি’র নির্দেশনাবলীঃ
   প্রেস বিজ্ঞপ্তি
   শিশুটিকে বাঁচাতে না পাড়লে নিজের কাছেই হেরে যেতাম’
   বাংলাদেশ পুলিশে কনস্টবল পদে ১০ হাজার নিয়োগ
   সিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ও নিরস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক গণের রদবদল
   সিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার, নিরস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক ও শহর ও যানবাহন পুলিশ পরিদর্শকগণের রদবদল।
   সিএমপি গোয়েন্দা পুলিশ কর্তৃক গোপন বৈঠকে নাশকতার পরিকল্পনা কারী ইসলামী সমাজ সংগঠনের ২৪ সদস্য গ্রেফতার।
   রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক পেলেন সিএমপির কনস্টবল শের আলী
   চট্টগ্রাম বিভাগীয় ডিজিটাল উদ্ভাবনী ও জেলা ব্র্যান্ডিং মেলায় শ্রেষ্ট হলেন চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ স্টল।
   পুলিশের ডিজিটাল সেবা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন জনাব মো: রুহুল আমীন, বিভাগীয় কমিশনার, চট্টগ্রাম।
   পুলিশের ডিজিটাল সেবা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন মাননীয় মন্ত্রিপরিষদ সচিব জনাব মোহাম্মদ শফিউল আলম
   সিএমপির অতিঃ উপ-পুলিশ কমিশনারগণ ও সহকারী পুলিশ কমিশনারগণের রদবদল
   মানুষ মানুষের জন্য আবারও সেটা প্রমাণ করলেন সিএমপি ডিবি পুলিশে কর্মরত কনস্টেবল শের আলী
   সিএমপির ৭ কর্মকর্তার পদোন্নতি
   সিএমপিতে নিরস্ত্র পুলিশ পরিদর্শকদের বদলী
   প্রেস বিজ্ঞপ্তি
   বাজারজাত শুরু হলো ওয়ালটন ল্যাপটপের
   মহিমান্বিত রজনী লাইলাতুল বরাত
   ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য মুক্ত আদর্শ জনগোষ্ঠী গড়ে তুলতে হবে
   মানবতা,সাম্য, ও শোষিত বঞ্চিত মানুষের কবি নজরুল
   মুখোমুখি অবস্থানে জোট-মহাজোট নির্বাচন নিয়ে শংকা - নাজিম উদ্দিন চৌধুরী এ্যানেল
   দুই নেত্রীর সংযত আচরণে জাতি আশ্বস্ত হয়েছে
   ইসলামি শিক্ষা প্রচার-প্রসারে আল্লামা হাফেজ সৈয়্যদ মুহাম্মদ তৈয়্যব শাহ (রহ.) এর অবদান - মাওলানা মুহাম্মদ জালালুদ্দিন আল কাদেরী


  পুরনো সংখ্যা